অক্টোবর ২৫, ২০২১

মুক্তিকন্ঠ

ভয়েস অফ ফ্রিডম ফাইটার ১৯৭১

চন্দ্রগঞ্জ থানা ছাত্রলীগের উদ্যোগে অসহায় কৃষকের ধান কেটে ঘরে তুলে দিল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ থানা ছাত্রলীগের উদ্যোগে পূর্বে ন্যায় এই বছরও অসহায় কৃষকের ধান কাটা কার্যক্রম হাতে নিয়েছে। পর্যায়ক্রমে চাহিদা অনুযায়ী অসহায় সকলের ধান কেটে দেওয়া হবে বলে জানান চন্দ্রগঞ্জ থানা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক কাজী মামুনুর রশিদ বাবলু।

কৃষক বাঁচলে, বাঁচবে দেশ, শেখ হাসিনার নির্দেশ,কৃষকের হাসি আমরা ভালোবাসি, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ, কৃষকের থাকবেনা কোন দুঃখ বা ক্লেশ এই মূলমন্ত্রকে ধারন করে চন্দ্রগঞ্জ থানা ছাত্রলীগ অসহায় কৃষকের ধান কাটা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়নের বসুধিতা গ্রামের কৃষক রুহুল আমিনের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দেন। রুহুল আমিন জানান আমি আমর পাকা ধান নিয়ে খুবই অসুবিধার মধ্যে ছিলাম। এই সময় হঠাৎ করেই বাবলু ভাই এসে আমার ধান গুলো  কেটে আমার বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দেন। এ সময় কৃষক রুহুল আমিনের মুখে তৃপ্তির হাসি দেখা যায়।

ধান কাটা কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন, চন্দ্রগঞ্জ থানা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক কাজী মামুনুর রশিদ বাবলু,   কফিল উদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি এম মাসুদুর রহমান মাসুদ, সহ-সভাপতি রাজিবুল ইসলাম নিশান, ৭নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি  শাহ পরান শাকিল, কাউছার আহাম্মদ রিয়াজ, এম. সজিব, রমজান পাঠোয়ারীসহ আরো অনেক ছাত্রলীগের নেতাকর্মী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এবং লক্ষ্মীপুর জেলা ছাত্রলীগের তত্বাবধানে এই কার্যক্রম চলমান থাকবে বলে জানায় উপস্থিত নেতা কর্মীরা।

কাজী মামুনুর রশিদ বাবলু জানান, সম্প্রতি কৃষক রুহুল আমিন মৃত্যুবরণ করে। ইতিমধ্যে তার মাঠের ফসল ধান পেকেছে। দেশের এ ক্রান্তিকালে অসহায় কৃষকের পরিবারে পাশে দাঁড়িয়েছি নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে। এছাড়াও ইতিমধ্যেই চন্দ্রগঞ্জ থানা অধীনে ছাত্রলীগের আওতাধীন ৯টি ইউনিটকে নির্দেশ দিয়েছি অসহায় কৃষকের সন্ধান করে তাদের ধান কেটে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার জন্য। আমাদের এই কাজের পাশাপাশি করোনাকালীন মাক্স বিতরন, জনগণকে সচেতনকরা, খাদ্র সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

শেয়ার করুন