অক্টোবর ২৫, ২০২১

মুক্তিকন্ঠ

ভয়েস অফ ফ্রিডম ফাইটার ১৯৭১

চন্দ্রগঞ্জে ২২ দিনের ব্যবধানে আবার ভয়াবহ অগ্নিকান্ড, ৫ দোকান পুড়ে ছাই

লক্ষ্মীপুর জেলা প্রতিনিধিঃ লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ বাজারের আলহ্বাজ ইব্রাহিম মিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন নতুন মার্কেটে অগ্নি কান্ডের ঘটনা ঘটেছে। বিষয়টি নিয়ে চন্দ্রগঞ্জের ব্যবসায়ীদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

১লা মে ( শনিবার) বিকাল ৪:৩০ মিনিটের সময় হঠাৎ করে চন্দ্রগঞ্জ বাজারের আফজাল রোডের ভিতরে আলহ্বাজ ইব্রাহিম মিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন মার্কেটে বৈদ্যুতিক সর্ট সার্কিটের থেকে অগ্নি কান্ডের ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয়রা জানায়। অগ্নি কান্ডের খবর শুনার সাথে সাথে চন্দ্রগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়।

সরেজমিনে জানা যায়, স্থানীয় দেওপাড়া গ্রামের মৃত সিরাজুল ইসলামের প্রবাসী দুই ছেলে গত ২মাস আগে ৬টি দোকান বিশিষ্ট মার্কেটটি করে। বর্তমানে মার্কেটে ৫জন ভাড়াটিয়া আছে ৬টি দোকানে। অগ্নিকান্ডে ১টি কনফেকশনারী দোকান, ১টি ঔষুধ দোকান, ২টি ফার্নিচার দোকান ও ১ টেইলারী দোকান পুড়ে ছাই হয়ে যায়। আগুন লাগার সাথে স্থানীয়রা ফায়ার সার্ভিস এর জন্য অপেক্ষা না করে গার্লস স্কুলের পুকুর থেকে দলীয়ভাবে পানিয়ে নিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে। প্রায় ৩০ মিনিট পানি দেওয়ার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে, ততক্ষণে সব পুড়ে ছাই হয়ে যায়। তবে স্থানীয়রা কিছু কিছু জিনিস বের করলেও অধিকাংশই আগুলে নষ্ট হয়ে গেছে।

পরবর্তীতে বিকাল ৫:০৫ মিনিটের সময় ফায়ার সার্ভিসের লক্ষ্মীপুর ইউনিট ঘটনাস্থলে আসে। ততক্ষণে আগুন নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা পরবর্তীতে ক্ষয়-ক্ষতির পরিমান জানার চেষ্টা করে। তবে স্থানীয়ভাবে অনুমান করা হয় প্রায় ২০/২৫ লক্ষ টাকার ক্ষয়-ক্ষতি হয়। তবে আগুনে পুড়ে যাওয়া টেইলারের মালিক জানান, সামনে ঈদকে কেন্দ্র করে অনেকের জামা-কাপড় তৈরী করেছেন, এখন কাষ্টমারদের কি জবাব দিবেন আর নিজেই বা কি করে এই ক্ষতি পূরণ করবেন?

প্রসংগত, গত ১০ এপ্রিল চন্দ্রগঞ্জ বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড ঘটে। সেখানে  ১০টি দোকান পুড়ে প্রায় ১ কোটি টাকার উপরে ক্ষয়-ক্ষতি হয়। লক্ষ্মীপুর জেলার জেলা প্রশাসক নিজেই ক্ষতিগ্রস্থদের নগদ টাকা এবং টিন অনুদান প্রদান করেন। ঐ ঘটনার ২২ দিনের মাথায় আবার চন্দ্রগঞ্জে অগ্নিকান্ড, বিষয়টি নিয়ে জনমনে জানান প্রশ্ন দেখা দেয়।

চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ কে ফজলুল হক জানান, ঘটনা জানান সাথে সাথে আমাদের টিম পাঠিয়ে দিই। পরবর্তীতে আমি যখন আসি ততক্ষণে আগুন নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। ফায়ার সার্ভিস  ইউনিটও আসে আগুন নিয়ন্ত্রণের পর। ক্ষয়-ক্ষতির বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে।

শেয়ার করুন