অক্টোবর ৭, ২০২২

মুক্তিকন্ঠ

ভয়েস অফ ফ্রিডম ফাইটার ১৯৭১

লক্ষ্মীপুরে প্রতিবন্ধীকে বলৎকারের অভিযোগে আটক সবুজ বাংলাদেশের দুই নেতার ৭দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

মুক্তিকন্ঠ ডেস্কঃ

শর্টফ্লিমে অভিনয়ে সুযোগ দেওয়ার নাম করে আরমান (২০) নামের এক প্রতিবন্ধীকে বলৎকারের অভিযোগে পরিবেশবাদী সংগঠন সবুজ বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইছমাঈল হোসেন বাবু (২৭) ও কেন্দ্রীয় কমিটির আরেক সদস্য শরীফুল ইসলাম কনক (২৫) সহ দুই যুবককে আটক করেছে লক্ষ্মীপুর সদর থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে বাবুকে তার ভাড়া বাসা থেকে ও কনককে শুক্রবার দুপুরে লক্ষ্মীপুর  শহর থেকে আটক করা হয়। আটককৃতদের শুক্রবার আদালতে হাজির করলে আদালত ৭দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে। এ ঘটনায় জেলার সর্বত্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

জানাযায়, লক্ষ্মীপুর জেলার কমল নগর উপজেলার চরমার্টিন ইউনিয়নের চরমার্টিন গ্রামের মৃত আবু সাঈদের ছেলে পরিবেশাবাদী সেচ্ছাসেবী সংগঠন সবুজ বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইছমাঈল হোসেন বাবু ও একই সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার মান্দারী ইউনিয়নের নেয়ামত পুর গ্রামের আজিজ উল্যার পুত্র শরীফুল ইসলাম কনক শর্টফ্লিমে অভিনয়ের সুযোগ দেওয়ার নাম করে পার্শ্ববর্তী আবুল কাশেম জব্বারের প্রতিবন্ধীপুত্র আরমান বয়স (২০)কে দীর্ঘদিন ধরে বলৎকার করে আসছিল। বৃহস্পতিবার লক্ষ্মীপুর শহরের সেনালী কলোনীস্থ রাজিব ভিলা নামক বাবুর ভাড়া বাসায় প্রতিবন্ধী ওই যুবককে আটকে রেখে রাতভর বলৎকার করে। এ ঘটনা বলৎকারের শিকার যুবকের বাবা জানতে পেরে লক্ষ্মীপুর সদর থানা পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ বাবুর বাসায় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে। পরে প্রতিবন্ধী যুবকের বাবা বাদী হয়ে সদর থানায় বাবু ও কনকের বিরুদ্ধে বলৎকার, মারধর ও হুমকী ধমকী এবং ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ একটি মামলা দায়ের করে। পুলিশ মামলার অপর আসামী কনককে শুক্রবার দুপুরে শহরের অপর একটি বাসা থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আটক করে। একই দিন পুলিশ মামলার এজহার ভুক্ত ও আটক দুই আসামীকে লক্ষ্মীপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করে রিমান্ড প্রার্থনা করলে আদালত আসামীদের ৭দিনের রীমান্ড মঞ্জুর করেছে।
লক্ষ্মীপুর সদর থানার অফিসার ইনচার্জ জসিম উদ্দিন ঘটনার সত্যতা ও আসামীদের রিমান্ড মঞ্জুর করার কথা নিশ্চিত করেছেন।
জানাযায়, গত কয়েক বছর ধরে বাবু ও তার অনুসারীরা সবুজ বাংলাদেশ নামে কৃষি ভিত্তিক একটি পরিবেশবাদী সংগঠন প্রতিষ্ঠা করে সারা দেশে বৃক্ষরোপন সহ নানা কার্যক্রম চালিয়ে আসছিল। বিগত করোনাকালীন সেচ্ছাসেবী টিম গঠন করে করোনায় আক্রান্তদের বিনামুল্যে ঔষধ, এম্ব্যুলেন্স ও অক্সিজেন সরবরাহ করার পাশাপাশি করোনায় মৃতদের লাশ দাফন করে জেলায় ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল।

শেয়ার করুন

আরও পড়তে পারেন..